Travel

(দেখুন) অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম ২০২৪ – eticket.railway.gov.bd

জেনে নিন কিভাবে অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটবেন, অনলাইনে ট্রেনের ই-টিকেট কাটার নিয়ম

অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম ২০২৪! প্রিয় যাত্রী বিন্দু, আপনাদের সবার অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ নতুনভাবে অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট ক্রয় করার নিয়ম চালু করেছে। এই বিষয়টি ইতিমধ্যে আমরা অনেকেই জেনে গেছি। তবে অনেকেই জানিনা যে অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট কিভাবে কাটতে হয়। যারা অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটার নিয়ম জানতে আগ্রহী? ঠিক তাদের জন্য আমরা আমাদের এই পোস্টটি সাজিয়েছি।

বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ অনলাইনে ই- টিকিট ক্রয় করার নতুন সিস্টেম চালু করেছে। আমরা এখানে অনলাইনে টিকিট ক্রয়ের নতুন সিস্টেমটি ধারাবাহিকভাবে বর্ণনা করব। আপনারা যারা অনলাইনে টিকিট ক্রয় করতে চান এবং অনলাইনে ট্রেনের টিকিট ক্রয়ের নতুন পদ্ধতি জানতে চান, তারা মনোযোগসহকারে সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ুন।

বাংলাদেশ রেলওয়ে ভ্রমণ সবচেয়ে নিরাপদ একটি মাধ্যম। বাংলাদেশের মানুষ ট্রেনে ভ্রমণ করতে পছন্দ করে। ট্রেনে ভ্রমণ করতে চায় না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যায় না বর্তমানে। কারণ রেল ভ্রমণের মাধ্যমে মানুষ পরিবারকে নিয়ে নিরাপদে নির্দিষ্ট স্থানে পৌঁছাতে পারে। তাই রেল কর্তৃপক্ষ ট্রেনে ভ্রমন প্রিয় মানুষদের কথা বিবেচনা করে ই-টিকিট সার্ভিস চালু করেছে। যার মাধ্যমে প্রত্যেক যাত্রী খুব সহজেই অনলাইনের মাধ্যমে নিজের টিকিট নিজেই ক্রয় করতে পারবে।

কয়েকদিন আগে shohoz.com রেল মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে ই-টিকিট বিক্রির চুক্তি পেয়েছেন। বাংলাদেশ রেলওয়ে মন্ত্রণালয় জানিয়েছেন যে, ২৬ মার্চ, ২০২৪ থেকে “Shohoz“ ই-টিকিট বিক্রি চালু করবে। Shohoz-Vinsen JV এর সাথে একটি 5 বছরের চুক্তি হয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে টিকেট ব্যবস্থা পরিচালনা করার জন্য। ইতিপূর্বে সিএনএস এ প্রকল্পের সাথে জড়িত ছিল। তাহলে নিচে থেকে অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম গুলো দেখুন।

আরও পড়ুন  লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ২০২৪, ভাড়ার তালিকা ও অনলাইন টিকেট

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট ২০২৪

রেলমন্ত্রনালয় shohoz.com এর সাথে নতুনভাবে চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার পর, অনলাইনে নতুন নিয়মের টিকিট কাটার জন্য নতুন একটি ওয়েবসাইট চালু করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। অনলাইনে টিকিট কাটার নতুন ওয়েবসাইটটি হল eticket.railway.gov.bd এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে যাত্রার অগ্রিম টিকিট বুকিং এবং ক্রয় করতে পারবেন।

আপনি জেনে অবাক হতে পারেন যে প্রতি মাসে 27 লাখ টিকিট অনলাইন ব্যবহার করে জারি করা হয় এবং দৈনিক 90,000 ও বেশি টিকিট জারি করা হয়। এই টিকিটগুলো কিন্তু অনলাইন এবং মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে জারি করা হয়। আপনি যদি অনলাইনের মাধ্যমে বাংলাদেশ রেলওয়ে ট্রেনের টিকিট ক্রয় করতে চান তাহলে আপনাকে eticket.railway.gov.bd এই ওয়েবসাইটে গিয়ে সর্বপ্রথম আপনাকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করার পর আপনি আপনার ভ্রমণের উদ্দেশ্যে এখান থেকে টিকিট বুকিং এবং ক্রয় করতে পারবেন।

অনলাইনের মাধ্যমে ঘরে বসে নিজের কম্পিউটার অথবা স্মার্টফোনের মাধ্যমে খুব সহজেই টিকিট কাটার নিয়ম টি আমরা নিচে ধারাবাহিকভাবে সাজিয়েছি। আপনি শুধু মনোযোগ সহকারে স্টেপ গুলো ফলো করুন।

অনলাইনে ট্রেনের ই-টিকেট কাটার নিয়ম ২০২৪

আপনারা যারা বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃক প্রকাশিত নতুন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনলাইনে টিকিট কাটতে পারছেন না, আমরা ঠিক তাদের জন্য অনলাইনের মাধ্যমে কিভাবে ট্রেনের টিকিট খুব সহজেই কাটবেন সেই নিয়ম গুলি আপনাদের দেখাবো। এককথায় আপনি নতুন টিকিট কেনার পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে পারবেন। কিভাবে আপনি নিজে নিজে অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট বুকিং করবেন এবং টিকিট ক্রয় করবেন সেই বিষয়গুলি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করছি। তাহলে চলুন দেরী না করে কিভাবে অনলাইনের মাধ্যমে দ্রুত ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম গুলো জেনে নেই।

আরও পড়ুন  মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ২০২৩, অনলাইন টিকিট, ভাড়ার তালিকা ও স্টপ স্টেশন

প্রথম ধাপ: সর্বপ্রথম eticket.railway.gov.bd এ যান

দ্বিতীয় ধাপঃ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পর আপনার সকল তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন

তৃতীয় ধাপ: এখন ওয়েবসাইটে লগইন অপশন এ যান এবং আপনার নাম ইমেইল এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন।

চতুর্থ ধাপঃ ড্রপ-ডাউন মেনু থেকে `ক্রয়` নির্বাচন করুন।

পঞ্চম ধাপঃ কোথায় যাবেন, কত তারিখ যাবেন, ট্রেনের ক্লাস, প্রাপ্তবয়স্ক এবং বাচ্চাদের আসনসংখ্যা লিখুন।

ষষ্ঠ ধাপ: এখন অনুসন্ধানে ক্লিক করুন, এখানে আপনি ট্রেনের আসন এর একটি তালিকা পাবেন

সপ্তম ধাপ: এই তালিকা থেকে আপনার আসনগুলি নির্বাচন করুন এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার সিট টি রিজাভ করুন।

এই পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করার পর, আপনার আসন নিশ্চিত হবে। এরপর আপনার কাঙ্খিত টিকিটের জন্য অর্থ প্রদান করতে হবে। আমরা আপনাদেরকে ট্রেনের ই-টিকিটের জন্য কিভাবে অর্থ প্রদান করবেন, তা জানার জন্য নিচের প্রেমেন্ট প্রক্রিয়াটি দেখুন।

অনলাইনে ট্রেনের ই-টিকেট পেমেন্ট প্রক্রিয়া ২০২৪ (বাংলাদেশ রেলওয়ে)

আপনার নির্ধারিত গন্তব্যে এর জন্য টিকিট বুকিং করার পরে। নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম এর মাধ্যমে আপনাকে অর্থ প্রদান করতে হবে। তাহলে আসুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে অনলাইনে টিকিট বুকিং করার পর পেমেন্ট করতে হয়। মনোযোগ সহকারে প্রত্যেকটি স্টেপ দেখুন।

প্রথম ধাপ: আপনি আপনার সেটটি বুকিং করার পরে, পেমেন্ট অপশনে যান।

দ্বিতীয় ধাপঃ এরপরে প্রেমেন্ট এর জন্য বিভিন্ন ব্যাংকের নাম এবং লোগো দেখতে পাবেন। বিভিন্ন ব্যাংকের নাম যেমন- ব্র্যাক ব্যাংক, ডাচ বাংলা ব্যাংক, মাস্টার কার্ড ভিসা কার্ড এবং মোবাইল ব্যাংকিং যেমন- বিকাশ, রকেট এমন আরো অনেক কিছু দেখতে পারবেন।

আরও পড়ুন  বুড়িমারী টু ঢাকা বাসের সময়সূচী, ভাড়া, টিকিট মূল্য-2024

তৃতীয় ধাপ: একটি ব্যাংক অথবা মোবাইল ব্যাংকিং সিলেট করবেন অর্থাৎ যে ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে আপনি অর্থ প্রদান করবেন সেটি সিলেক্ট করুন।

চতুর্থ ধাপঃ এরপর আপনি অ্যাকাউন্ট নম্বর প্রবেশ করার পরে নিশ্চিত বাটনে ক্লিক করুন।

পঞ্চম ধাপঃ আপনার অ্যাকাউন্ট নিমন্ত্রিত মোবাইল নম্বরে একটি নিরাপত্তা কোড পাঠানো হবে অর্থাৎ একটি ওটিপি কোড আপনার মোবাইল নাম্বারে আসবে।

ষষ্ঠ ধাপ: ওটিপি কোডটি প্রবেশ করার পর আপনার একাউন্টের পিন নাম্বারটি লিখুন।

সপ্তম ধাপ: আপনার টিকিট ক্রয়ের জন্য নিশ্চিত করুন বাটনে ক্লিক করুন। এখন আপনার টিকিটটি সম্পূর্ণভাবে ক্রয় হয়ে যাবে।

এই পেমেন্ট সম্পূর্ণভাবে করার পরে 30 মিনিটের মধ্যে ই-মেইলের মাধ্যমে আপনাকে আপনার টিকিটের প্রেমেন্ট সম্পূর্ণ হয়েছে এরকম একটি ম্যাসেজ প্রদান করা হবে। মেসেজটি পরার পর আপনার রেলওয়ে ওয়েবসাইটের ড্যাশবোর্ডে ই-টিকিট টি দেখতে পারবেন।

এরপর আপনি এখান থেকে টিকিট টি ডাউনলোড করে আপনার নিকটস্থ কম্পিউটার দোকানে গিয়ে টিকিট প্রিন্ট করে নিন। এবং আপনি ভ্রমণের সময় স্টেশন থেকে আপনার আইডি কার্ড সাথে নিয়ে অরিজিনাল টিকেট সংগ্রহ করুন।

আশা করি, আপনি বাংলাদেশ রেলওয় অনলাইন ট্রেন টিকেট বুকিং এবং ই-টিকিট ক্রয় করার সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পেয়েছেন। এবং আশা করছি অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট কাটার সম্পূর্ণ প্রসেসটি আমরা আপনাদেরকে বুঝাতে পেরেছি। এরপরও যদি আপনাদের কোন ধরনের সমস্যা মনে হয়, তাহলে কমেন্ট বক্সে গিয়ে আপনার কাঙ্খিত সমস্যাটি লিখুন। আমাদের প্রতিনিধি দল দূরত্ব আপনাদের সমস্যার সমাধান দেওয়ার চেষ্টা করবে। আপনাদের মূল্যবান সময় দেয়ার জন্য ধন্যবাদ।

মুশফিক আর ইভান

হ্যালো, আমি মুসফিক আর ইভান। আমি বাংলাদেশের ট্রেন্ডিং টপিক নিয়ে লিখতে পছন্দ করি। মূলত, আমি শিক্ষা, প্রযুক্তি, বিনোদন, স্বাস্থ্য টিপস এবং খেলাধুলা নিয়ে লিখি। আমি ব্লগের বিষয়বস্তু লেখা এবং গবেষণার জন্য সর্বাধিক সময় ব্যয় করি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button